কম্পিউটারের ২০ টি প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার

কম্পিউটারের ২০ টি প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার

কম্পিউটার আবিষ্কার হওয়ার পর থেকেই প্রযুক্তিগত ভাবে পুরো পৃথিবী পরিবর্তন হওয়া শুরু করেছে। সে পরিবর্তন আমাদের ভালোর জন্য হচ্ছে এবং এখন পর্যন্ত উন্নতির ধারাবাহিকতা বজায় আছে। কম্পিউটার অনেকগুলো সার্ভিসের সমষ্টি যা আমাদের প্রতিটি কাজ আরও সহজ করে দিয়েছে। যেমন কোন প্রতিষ্ঠানের হিসেব রাখার জন্য কাগজের বদলে কম্পিউটার ইউজ করা হয়। সব ধরনের গণনা থেকে শুরু করে অটোমেশনের কাজ কম্পিউটার দিয়ে সহজে করা যাচ্ছে। তবে কম্পিউটারকে কাজে লাগানোর জন্য প্রয়োজন পড়ে সফটওয়্যারের। অর্থাৎ কম্পিউটার কাজ করে সফটওয়্যারের মাধ্যমে। আমাদের আজকের পোস্টে আমরা কম্পিউটারের ২০টি প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার সম্পর্কে জানবো। যেগুলো একটি কম্পিউটারে থাকা জরুরী। তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে মূল আলোচনা শুরু করা যাক।

কম্পিউটারের ২০টি প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার

Google Chrome

গুগল ক্রোম একটি পাওয়ারফুল ইন্টারনেট ব্রাউজার। এটি অনেক ফাস্ট এবং এর ফাংশনালিটি অনেক উন্নত। বর্তমানে পারফরমেন্স এর দিক দিয়ে ক্রোম ব্রাউজার সবার উপরে আছে। যদিও অতিরিক্ত র‍্যাম কিল করার দুর্নাম গুগল ক্রোমের আছে তবুও এর লুক এবং পারফরমেন্স অনেক ভালো।

Mozilla Firefox

মোজিলা ফায়ারফক্স গুগল ক্রোমের মতই একটি ইন্টারনেট ব্রাউজার। এই দুটি একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী হলেও ফায়ারফক্স অনেক পপুলার একটি ব্রাউজার। কম্পিউটারে দুইটি ব্রাউজার ইউজ করা অনেক সময় জরুরী না। তবে ক্রোমের পাশাপাশি ফায়ারফক্স ইন্সটল করে রাখা ভালো। কারণ এতে একটি ভালো না লাগলে আরেকটিতে সুইচ করা যায় সহজে। বিশেষ করে আপনার কম্পিউটারে র‍্যাম কম থাকলে মোজিলা ফায়ারফক্স ইউজ করতে পারবেন।

সেরা ১০ টি অপারেটিং সিস্টেম

WinRAR

উইনরার একটি কম্প্রেসর সফটওয়্যার। ফাইল বা ফোল্ডার কমপ্রেস করতে বা কমপ্রেস করা ফাইল এক্সট্রাক্ট করতে এই সফটওয়্যার প্রয়োজন পরে। কোন ফাইল বা ফোল্ডার কমপ্রেস করার কারণে ফাইল সাইজ যেমন কমানো যায় তেমন এতে পাসওয়ার্ড অ্যাড করা যায়। কমপ্রেস করা ফাইলে কোন ভাইরাস অ্যাটাক করতে পারে না। আমরা সাধারণত .zip, .rar এবং .7zip এক্সটেনশনের কমপ্রেস ফাইল দেখি। এগুলো ওপেন করার জন্য উইনরার অনেক কার্যকরী সফটওয়্যার।

VLC

কম্পিউটারে অডিও এবং ভিডিও ফাইল ওপেন করার জন্য প্লেয়ারের প্রয়োজন পরে। ইন্টারনেটে অনেক ধরনের মিডিয়া প্লেয়ার পাওয়া যায় তবে ভিএলসি একটি অল ইন ওয়ান মিডিয়া প্লেয়ার। এতে আপনি সব ধরনের অডিও এবং ভিডিও প্লে করতে পারবেন। এছাড়াও অনলাইন থেকে সরাসরি মিডিয়া স্ট্রিমিং করে দেখতে পারবেন। ভিএলসিতে বিল্ড ইন মিডিয়া কনভার্টার আছে। যা দিয়ে যে কোন মিডিয়া অন্য যে কোন এক্সটেনশনে কনভার্ট করতে পারবেন।

F.lux

কম্পিউটার চালাতে গিয়ে আমরা সবসময় চোখের বিভিন্ন সমস্যায় পরি। প্রতিটি কম্পিউটারে পর্দার আলো কন্ট্রোল করার সিস্টেম থাকলেও তা চোখের জন্য এপ্রোপিয়েট হয়না। এই সমস্যা দূর করার জন্য f.lux সফটওয়্যার একদম পারফেক্ট। এই সফটওয়্যার আপনার লোকাল এলাকার টাইম ডিটেক্ট করে স্ক্রীন ব্রাইটনেস কন্ট্রোল করে। পারফেক্ট কালার অ্যাডাপ্টেশনের জন্য f.lux এর বিকল্প কিছু নেই। প্রতিটি কম্পিউটারে এরকম একটি সফটওয়্যার থাকা অতি জরুরী।

CCleaner

নিয়মিত কম্পিউটার ইউজ করার কারণে C ড্রাইভে অনেক অতিরিক্ত ফাইল জমা হয়। যা ধীরে ধীরে C ড্রাইভের স্পেস ফুল করে ফেলে। এতে কম্পিউটার তার স্বাভাবিক গতি হারিয়ে ফেলে এবং অন্যান্য সমস্যা তৈরি হয়। যেমন পিসি স্লো হয়ে যায়, সফটওয়্যার কাজ করতে করতে ক্রাশ করে। এমন অনেক সমস্যা তৈরি হয় C ড্রাইভ ফুল হয়ে গেলে। তাই নিয়মিত C ড্রাইভ ক্লিন করার প্রয়োজন পরে। CCleaner দিয়ে সহজে পিসি ক্লিন করা যায়। এতে পুরো কম্পিউটার ক্লিন করা বাদেও কম্পিউটারের রেজিস্ট্রি ফাইলের সমস্যা ঠিক করা যায়। সব মিলিয়ে পিসি ক্লিনার হিসেবে CCleaner সফটওয়্যার একদম পারফেক্ট।

এন্ড্রয়েড এর ১০টি জনপ্রিয় গেমস

BitTorrent

বড় বড় ফাইল হাই স্পীডে ডাউনলোড করার জন্য টরেন্ট একটি পপুলার মাধ্যম। কিন্তু টরেন্ট ফাইল ডাউনলোড করার জন্য টরেন্ট ক্লাইন্ট প্রয়োজন পরে। টরেন্ট ক্লাইন্ট হিসেবে BitTorrent অনেক পপুলার একটি সফটওয়্যার।

Internet Download Manager (IDM)

আমরা ইন্টারনেট থেকে কোন ফাইল ডাউনলোড করতে গেলে অনেক ধীরে ধীরে ফাইল ডাউনলোড হয়। ইন্টারনেট স্পীড ফাস্ট থাকলেও অনেক সময় হাই স্পীডে ফাইল ডাউনলোড হয়না। এ জন্য ইন্টারনেট থেকে ফাস্ট স্পীডে ফাইল ডাউনলোড করার জন্য ডাউনলোড ম্যানেজার ইউজ করা হয়। যতগুলো ডাউনলোড ম্যানেজার আছে IDM তাদের মধ্যে সবথেকে ফাস্ট সার্ভিস দেয়। এখানে মূল ডাউনলোড স্পীড থেকে ৫ গুণ বেশি স্পীডে ডাউনলোড করা যায়। এখানে আপনি অনেক গুলো ফাইল একসাথে কিউ (Queue) করে রাখতে পারবেন। অর্থাৎ একসাথে অনেকগুলো ফাইল ডাউনলোড দিতে পারবেন।

Avro Keyboard

বাংলা লেখার জন্য অভ্র অনেক জনপ্রিয় একটি সফটওয়্যার। বিশেষ করে ইউনিকোডে লেখার জন্য সবাই অভ্র ইউজ করে। এর কীবোর্ড লেআউট অনেক সহজ এবং সহজেই সকল যুক্তবর্ণ লেখা যায়। এখানে আপনি ইউনিকোডে লেখা বিজয়ে কনভার্ট করতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে আলাদা কোন সফটওয়্যার ইউজ করতে হবে না। বর্তমান সময়ে প্রতিটি কম্পিউটারে অভ্র একটি কমন সফটওয়্যার হয়ে দাঁড়িয়েছে। আপনি যদি সহজ ও সুন্দর ভাবে বাংলা লিখতে চান তাহলে কম্পিউটারে অবশ্যই অভ্র ইন্সটল দিতে হবে।

Team Viewer

টিম ভিউয়ার একটি স্ক্রীন শেয়ারিং এবং রিমোট কন্ট্রোল সফটওয়্যার। আমাদের বিভিন্ন প্রয়োজনে স্ক্রীন শেয়ার করার প্রয়োজন পরে। যেমন অফিস থেকে বাসার পার্সোনাল কম্পিউটার ইউজ করার জন্য বা অন্য কারো কম্পিউটারের সমস্যা ঠিক করে দিতে স্ক্রীন শেয়ারের প্রয়োজন পরে। আপনি অনলাইনে কাউকে কিছু সেখাতে গিয়ে নিজের কম্পিউটার দেখাতে চাইলে সেখানে স্ক্রীন শেয়ার করতে হয়। এছাড়া কোন কম্পিউটার রিমোটলি কন্ট্রোল করতে টিম ভিউয়ার সফটওয়্যার প্রয়োজন পরে। এই সফটওয়্যার ইউজ করে সহজে ফাইল ট্র্যান্সফার করা যায়। মোটকথা স্ক্রীন শেয়ার এবং রিমোট কন্ট্রোল সফটওয়্যার প্রয়োজন পরলে টিম ভিউয়ার একটি পারফেক্ট চয়েস।  

Microsoft Office

মাইক্রোসফট অফিস একটি পূর্ণাঙ্গ অফিস প্রোগ্রাম। এখানে ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট, অ্যাক্সেস সহ অনেকগুলো অ্যাপ্লিকেশন আছে। সব ধরনের লেখালেখি, হিসাব-নিকাশ, প্রেজেন্টেশন, ডাটাবেস তৈরি সহ অন্যান্য পার্সোনাল এবং অফিস রিলেটেড কাজের জন্য মাইক্রোসফট অফিস সফটওয়্যারের কোন বিকল্প নেই।

Adobe Photoshop

আমাদের বিভিন্ন সময় প্রয়োজনীয় ছবি এডিট করার প্রয়োজন পরে। অ্যাডোবি ফটোশপ একটি অতি জনপ্রিয় ফটো এডিটর সফটওয়্যার। এখানে যেকোনো ছবি অনেক সুন্দর আর আকর্ষণীও ভাবে এডিট করা যায়। আপনি এই সফটওয়্যার ইউজ করে গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে পারবেন। একটি ছবির যাবতীয় কাজ প্রফেশনালভাবে করার জন্য অ্যাডোবি ফটোশপ পারফেক্ট। আপনার কম্পিউটারে এই সফটওয়্যার রাখার কোন বিকল্প নেই।

Foxi Reader

কম্পিউটারে কোন pdf বই পড়ার জন্য বা তৈরি করার জন্য আপনার একটি pdf রিডার এবং এডিটর প্রয়োজন পরবে। যদিও শুধু pdf পড়ার জন্য ইন্টারনেটে অনেক pdf রিডার পাবেন। কিন্তু ফক্সি রিডার একই সাথে pdf রিডার এবং এডিটর। অর্থাৎ এখানে আপনি pdf পড়ার পাশাপাশি সব ধরনের এডিট করা যায়।

Audacity

এটি একটি অডিও এডিটিং টুল। এর মাধ্যমে আপনি হাই কোয়ালিটি অডিও রেকর্ড করতে পারবেন। পরে সেই অডিও এডিট সহ সকল ধরনের কাস্টমাইজেশন করতে পারবেন। অডাসিটি পুরোপুরি একটি ভিডিও এডিটরের মতো। একটি কম্পিউটারের জন্য অডাসিটি প্রয়োজনীয় একটি সফটওয়্যার।

Wondershare Filmora

ফিল্মোরা একটি ভিডিও এডিটর। একটি কম্পিউটারে যে সব প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার থাকা প্রয়োজন তাদের মধ্যে ভিডিও এডিটর অন্যতম। ফিল্মোরা বর্তমান সময়ের অনেক শক্তিশালী এবং আধুনিক ভিডিও এডিটর। প্রফেশনাল ভিডিও এডিট করার জন্য সব ধরনের রিসোর্স এবং টুল ফিল্মোরায় পাওয়া যায়। এটি সব ধরনের সিস্টেমে অনেক ভালো পারফরমেন্স দেয়।

Eset Antivirus

এন্টিভাইরাস একটি কম্পিউটারকে সকল ধরনের ভাইরাস এবং অনলাইন থ্রেট থেকে সুরক্ষা দেয়। প্রতিটি কম্পিউটারে অবশ্যই একটি এন্টিভাইরাস ইউজ করা জরুরী। সেদিক থেকে ইসেট একটি অল ইন ওয়ান এন্টিভাইরাস। এটি ইন্সটল করলে আপনি সকল ধরনের নিশ্চিত সুরক্ষা পাবেন।

Skype

পার্সোনাল এবং প্রফেশনাল ইউজের জন্য আমাদের ইনস্ট্যান্ট মেসেজ সার্ভিস ইউজ করতে হয়। স্কাইপ অনেক পাওয়ারফুল সফটওয়্যার যেখানে টেক্সট, অডিও এবং ভিডিও কল সহজ সকল সার্ভিস ইউজ করা যায়। স্কাইপ একটি ডেডিকেটেড টেলিকমিউনিকেশন সফটওয়্যার যা আপনার কম্পিউটারে থাকা অতি প্রয়োজনীয়।

Rufus

আমাদের বিভিন্ন প্রয়োজনে পেনড্রাইভ বুটেবল করার প্রয়োজন পরে। বিশেষ করে কম্পিউটারে অপারেটিং সিস্টেম ইন্সটল করার জন্য আমাদের পেনড্রাইভ বুটেবল করার প্রয়োজন পরে। পেনড্রাইভ বুটেবল করার জন্য Rufus একটি আদর্শ সফটওয়্যার। এটি দিয়ে আপনি সব ধরনের পেনড্রাইভ এবং ISO ফাইল বুটেবল করতে পারবেন।

ই-মেইল কি? সেরা কিছু মেইল সার্ভিস

Notepad++

প্রতিটি কম্পিউটারে একটি ডিফল্ট নোটপ্যাড থাকে। তবে এই নোটপ্যাডের সমস্যা হলো এটি দেখতে তেমন সুন্দর না। এখানে টেক্সট গুলোর ফরম্যাটিং সুন্দরভাবে করা যায়না এবং অনেক কাস্টমাইজেশন করা যায়না। এই সমস্যা থেকে বাঁচার জন্য আপনার কম্পিউটারে Notepad++ ইন্সটল দেওয়া জরুরী। Notepad++ যেমন দেখতে সুন্দর এবং স্মুথ তেমনি এতে আপনি সুন্দর সুন্দর থিম ইন্সটল দিয়ে আরও চমৎকার লুক দিতে পারবেন। তাছাড়া অনেক বড় সাইজের টেক্সট প্রসেস করতে Notepad++ প্রয়োজন পরবে।

Nord VPN

সাধারণত ভিপিএন ইউজ করা হয় ব্লক ওয়েবসাইট ভিজিট করতে এবং অনলাইনে নিজেকে গোপন রাখতে। এছাড়া ইন্টারনেট স্পীড বৃদ্ধি করতেও ভিপিএন ভূমিকা রাখে। সে দিক দিয়ে ভিপিএন ইউজ করা প্রতিটি কম্পিউটার ইউজারের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এতে আপনার প্রাইভেসি যেমন রক্ষা হয় তেমনি ব্লক করা ওয়েবসাইট বা রিসোর্স ভিজিট করা যায়। Nord একটি অতি উচ্চমানের ভিপিএন। এই ভিপিএনে অনেক দেশের সার্ভার পাওয়া যায়। প্রতিটি কানেকশন অনেক শক্তিশালী হয়। সবদিক থেকে বিবেচনা করলে Nord কম্পিউটারের জন্য একটি আদর্শ ভিপিএন।

আসলে কম্পিউটারে কি কি সফটওয়্যার ইউজ করবেন তা ডিপেন্ড করে আপনার প্রয়োজনের উপরে। কিন্তু এর পরেও কিছু সফটওয়্যার ইউজ না করলেই নয়। তাই আমাদের এই ছোট্ট আয়োজন। আশাকরি লেখাটি পরে বুজতে পেরেছেন যে কি কি সফটওয়্যার ইউজ করা প্রয়োজন। আপনার মতামত অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে জানাবেন ধন্যবাদ।

Leave a Reply