সার্চ ইঞ্জিন

গুগলের বিকল্প প্রাইভেট ৭ টি সার্চ ইঞ্জিন

ইন্টারনেটে তথ্য খুঁজে পাওয়ার জন্য গুগল সার্চ ইঞ্জিনের কোন তুলনা হয়না। যে কোন টপিক নিয়ে সার্চ করলেই আমাদের সামনে লাখ লাখ তথ্য নিয়ে গুগল হাজির হয়। বিভিন্ন ওয়েবসাইট লিংক বাদেও ইমেজ, ভিডিও, ই-বুক সহ অন্যান্য ডিজিটাল ইনফরমেশন রিসোর্স পাওয়া যায়। সব ধরনের তথ্য পাওয়া যায়। যার জন্য মানুষ বেশি বেশি গুগল ইউজ করে। 

ওয়েবসাইট মালিক তথ্য দেওয়ার জন্য তাদের রিসোর্স গুগলে সাবমিট করে। সঠিক ভাবে তথ্য দেখানোর জন্য গুগল ইউজারের ডাটা এবং অ্যাক্টিভিটি সংগ্রহ করে। যে কারনে মানুষ প্রাইভেসি প্রটেক্ট করে এমন সার্চ ইঞ্জিন খোঁজে। আমাদের আজকের পোস্টে আমরা ৭ টি গুগলের বিকল্প এবং প্রাইভেট সার্চ ইঞ্জিন সম্পর্কে জানবো, চলুন শুরু করা যাক।

গুগলের বিকল্প প্রাইভেট ৭ টি সার্চ ইঞ্জিন

গুগল বাদেও অনলাইনে অনেকগুলো সার্চ ইঞ্জিন আছে যেগুলো ইউজারের প্রাইভেসি প্রটেক্ট করে। গুগল তাদের অ্যাডভারটাইজ সঠিক ভাবে পরিচালনা করার জন্য ইউজারের সার্চ অ্যাক্টিভিটি ট্র্যাক করে এবং তার উপর ডিপেন্ড করে অ্যাড দেখায়। ডাটা প্রাইভেসির জন্য এটি মারাত্মক একটি থ্রেট। এ কারণে ইউজার বিকল্প সার্চ ইঞ্জিন খুঁজে থাকে। আজকে আমরা এমন কিছু গুগলের বিকল্প সার্চ ইঞ্জিন সম্পর্কে আলোচনা করবো। চলুন আলোচনা শুরু করা যাক।

DuckDuckGo

ইউজারের ডাটা সুরক্ষিত রেখে সার্চ রেজাল্ট শো করাতে DuckDuckGo এর সমতুল্য কেউ নেই। ডাকডাকগো তার সার্চ রেজাল্ট পেজে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেখায়। যেখানে গুগল সব থেকে বেশি রেজাল্ট দেখায়। ডাকডাকগোতে সব ভিজিটরকে একই সার্চ রেজাল্ট দেখানো হয়। অর্থাৎ একটি সার্চ কুয়েরি আপনি বা আপনার বন্ধু সার্চ করলে একই রেজাল্ট দেখতে পাবেন। এর কারণ তারা ইউজারের তথ্য সংগ্রহ না করার কারনে আলাদা আলাদা বা পার্সোনালাইজড রেজাল্ট পেজ তৈরি করে না। যার ফলে সকল ভিজিটর একই ডাটা দেখে। অন্যদিকে গুগল ইউজার ডাটা সংগ্রহ করে জন্য ভিজিটরকে তার অ্যাক্টিভিটি হিসেবে আলাদা আলাদা রেজাল্ট দেখাতে পারে।

ডাকডাকগোকে শঙ্কর সার্চ ইঞ্জিন বলা হয়। কারণ তারা ডাটা শো করার সময় উইকিপিডিয়া, বিং, ইয়াহু ইত্যাদি থেকে রেজাল্ট কালেক্ট করে ফলাফল শো করে। বর্তমানে পার্সোনাল সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে ডাকডাকগো অনেক ট্রাস্টেড এবং লিনাক্স মিন্ট তাদের ডিফল্ট সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে এটিকে ইউজ করে। সবদিক বিবেচনা করলে প্রাইভেসি প্রটেক্টর হিসেবে ডাকডাকগো একটি পারফেক্ট সার্চ ইঞ্জিন।

কম্পিউটার নেটওয়ার্ক কি?

গুগলের মত এদের অ্যাড দেওয়া যায়। কিন্তু একজন ভিজিটর হিসেবে প্রতিটি অ্যাডের উপর আপনার কন্ট্রোল থাকে। অর্থাৎ আপনি চাইলে অ্যাড বন্ধ করে রাখতে পারবেন। মেটা ডাটার ভিত্তিতে রেজাল্ট শো করার কারনে সব থেকে কাছাকাছি উত্তর পাওয়া যায়। আপনি চাইলে কান্ট্রি সিলেক্ট করে সার্চ রেজাল্ট দেখতে পারবেন।

Qwant

এটি একটি ডায়নামিক সার্চ ইঞ্জিন Qwant হলো ডাকডাকগো এর পর সবথেকে বেশি ব্যাবহার হওয়া সার্চ ইঞ্জিন। এখানে আপনি ডিজিটাল ফ্রীডম এবং প্রাইভেসি প্রোটেকশন পাবেন। তারা কোন বিশেষ বা পার্সোনালাইজড সিস্টেম অফার করে না যে কারনে ইউজার ইনফরমেশন ট্র্যাক করা প্রয়োজন হয়না। এছাড়া তাদের সার্চ পেজে আপনি ট্রেন্ডিং টপিকস এবং রিসেন্ট বিভিন্ন নিউজ দেখতে পাবেন।

Qwant একটি বিশাল সার্চ ইঞ্জিন যেখানে আপনি সকল ধরনের সার্চ রেজাল্ট দেখতে পাবেন। অর্থাৎ এখানে আপনি ওয়েব লিংক, ইমেজ, ভিডিও, সোশ্যাল ফিড সহ অনেক জিনিস দেখতে পাবেন। গুগলের অল্টারনেটিভ হিসেবে ডাকডাকগোর পর Qwant এর অবস্থান।

Swisscows 

এটি একটি সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক ওয়েব সার্চ ইঞ্জিন Swisscows একটি অ্যাডাল্ট কনটেন্ট ফ্রী সার্চ ইঞ্জিন। অর্থাৎ এখানে ডিফল্ট ভাবে অ্যাডাল্ট কনটেন্ট ফিল্টার হয়। যার কারণে এটিকে ফ্যামিলি ফ্রেন্ডলি সার্চ ইঞ্জিন বলা হয়। তাদের নিজস্ব সার্ভার এবং ডাটা সেন্টার আছে যা Swiss Alps এ অবস্থিত। তাদের মতে Swiss Alps কে ইউরোপের সব থেকে নিরাপদ বাঙ্কার বলা হয়।

তারা কোন থার্ড পার্টি সার্ভিস বা ক্লাউড সার্ভিস ইউজ করেনা। তারা তাদের নিজস্ব সার্ভার এবং ডাটা সেন্টার থেকে নিজেদের অপারেট করে। এ জন্য তাদের ইউজার ডাটা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের সাথে শেয়ার করার প্রয়োজন পড়ে না। তারা আপনার আইপি অ্যাড্রেস বা কোন ব্রাউজার থেকে সার্চ করছেন সে ডাটাও সংগ্রহ করে না। সে দিক বিবেচনা করলে Swisscows একটি পারফেক্ট প্রাইভেসি প্রটেক্টেড সার্চ ইঞ্জিন।

searX

 মেটা সার্চ রেজাল্ট শো করার জন্য searX একটি আদর্শ সার্চ ইঞ্জিন। এটি সম্পূর্ণ ওপেন সোর্স ওয়েব সার্চ ইঞ্জিন। ২০১৪ সালে পাবলিশ হওয়া searX সম্পূর্ণটা পাইথন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজে তৈরি। আপনি যদি ডেভেলোপার হয়ে থাকেন তাহলে searX এর গিটহাব রিপোজিটরি তে কন্ট্রিবিউট করতে পারবেন।

এটি সধারনত অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন ওয়েবসাইট থেকে মেটা ডাটার মাধ্যমে রেজাল্ট কালেক্ট করে ফলাফল শো করে। অর্থাৎ আপনি যদি “best bike” লিখে searX এ সার্চ করেন তাহলে সে ওই একই কুয়েরি দিয়ে বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করলে যে যে রেজাল্ট দেখাবে সে রেজাল্ট গুলো একত্র করে একসাথে শো করে।

আপনি চাইলে searX নিজের সার্ভার থেকে কাস্টমাইজ করে ইউজ করতে পারবেন। ওপেন সোর্স হওয়ায় আপনি অনেক অ্যাডভান্স ফিচার ইউজ করতে পারবেন। যেমন যে কোন লিংক থেকে ট্র্যাকার রিমুভ করা, সার্চ ইঞ্জিন অ্যাড বা রিমুভ করা(কোন কোন সার্চ ইঞ্জিন থেকে ডাটা সংগ্রহ করবে বা করবে না) ইত্যাদি। এসকল কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য searX কোন ইউজার ডাটা সংগ্রহ করে না। আর এর যেহেতু কোন অ্যাড সিস্টেম নেই সে জন্য এটি চলে ডোনেশনের উপরে।

Metager

১৯৯৬ সালে জার্মান metager পাবলিশ করে। এটি একটি মেটা টারগেটেড সার্চ ইঞ্জিন যেখানে ইউজার ডাটা কে সর্বোচ্চ প্রাইভেসি দেওয়া হয়। এটি জার্মানির SUMA-EV নামক একটি এনজিও এবং ইউনিভার্সিটি অফ হানভার এর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত সার্চ ইঞ্জিন। metager জার্মানে হোস্ট করা এবং এদের ২৪ টির মত ওয়েব ক্রাওলার আছে।

৫ টি সেরা হ্যাকিং অপারেটিং সিস্টেম

সর্বমোট ৫০টির মত সার্চ ইঞ্জিন থেকে ডাটা শো করায় যা আপনি ইচ্ছা মত ফিল্টার করে নিতে পারবেন। metager টর নেটওয়ার্ক ইউজ করে তার সার্চ সিস্টেম কাজ করায়। অর্থাৎ আপনি যা যা সার্চ করেন তা গোপন থাকে এবং কোন ভাবে তা ট্র্যাক করা যায়না। এখানে তারা অ্যাড সিস্টেম ইউজ করলেও আপনি SUMA-EV এনজিও এর মেম্বারশিপ নিয়ে অ্যাড ছাড়াই metager ইউজ করতে পারবেন।

Ecosia

২০০৯ সালে জার্মানীর বার্লিনে Ecosia নামক সার্চ ইঞ্জিন প্রতিষ্ঠিত হয়। এই সার্চ ইঞ্জিনের একটি ভালো গুণ হলো আপনি যতবার এতে সার্চ করবেন ততবার একটি করে গাছ রোপণ করা হবে। অর্থাৎ আপনার Ecosia ইউজ করার কারণে তারা অ্যাড থেকে যে পরিমাণ আয় করে তার ৮০ ভাগ বিভিন্ন সেবামূলক প্রতিষ্ঠানকে বৃক্ষ রোপণের জন্য অর্থ প্রদান করে।

Ecosia সাধারণত ইয়াহু, বিং এবং উইকিপিডিয়া থেকে রেজাল্ট নিয়ে একটি কম্বাইন্ড রেজাল্ট শো করে। এরা কোন ডাটা বেশিক্ষণ স্টোর করে রাখে না এবং প্রতিটি সার্চ এনক্রিপটেড থাকে। অ্যাড শো করানোর জন্য এরা কোন ইউজার ডাটা থার্ড পার্টি কোম্পানির কাছে সেল করে না।

Mojeek

এটি একটি আমেরিকা ভিত্তিক সার্চ ইঞ্জিন। এদের নিজস্ব অ্যালগরিদম আছে এবং নিজস্ব ক্রাওলার আছে। Mojeek তাদের নিজস্ব ইনডেক্স সিস্টেমের মাধ্যমে ডাটাবেস তৈরি করেছে। অর্থাৎ এরা অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিন থেকে সার্চ রেজাল্ট সংগ্রহ করে না। এখানে সার্চ করলে তাদের নিজস্ব সার্চ ডাটাবেস থেকে নিজেদের অ্যালগরিদম ইউজ করে রেজাল্ট শো করে। প্রাইভেসির দিক দিয়ে এরা অনেকটাই ট্রাস্টঅর্থী কারণ এদের নিজস্ব ইনডেক্স ডাটাবেস আছে। এই কারণে এদের অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিনের সাথে ডাটা শেয়ার অথবা এক্সচেঞ্জ করতে হয়না।

বর্তমানে গুগল অনেক পপুলার একটি সার্চ ইঞ্জিন। কিন্তু এরা বিভিন্ন থার্ড পার্টি কোম্পানির সাথে ইউজার ডাটা শেয়ার করে। আপনার প্রতিটি সার্চ হিস্টোরি ষ্টোর করে এবং সেগুলো নিয়ে রিসার্চ করে আপনাকে অ্যাড দেখায়। এতে ভিজিটরের কোন প্রাইভেসি রক্ষা হয়না। সে দিক থেকে উপরে বর্ণিত প্রতিতি সার্চ ইঞ্জিন ইউজার প্রাইভেসি রক্ষা করে। আশাকরি পুরো লেখা পড়ে প্রাইভেসি ফোকাসড সার্চ ইঞ্জিন নিয়ে আপনার মধ্যে আর কোন কনফিউশন থাকবে না। লেখা পড়ে আপনার কেমন লাগলো তা অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানাবেন ধন্যবাদ। 

Leave a Reply