ব্রাউজার কি? ব্রাউজার কিভাবে কাজ করে?

ব্রাউজার কি? ব্রাউজার কিভাবে কাজ করে?

বর্তমান এই আধুনিক দুনিয়ায় বাস করে ইন্টারনেটে কোন কিছু সার্চ করেনি এ রকম কাউকে খুঁজে পাওয়া কষ্টসাধ্য ব্যাপার। কারন এখন আমরা বসবাস করছি ইন্টারনেটের দুনিয়ায়। এখানে আপনি কোনো কি-ওয়ার্ড দিয়ে কোন কিছু সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন অসংখ্য আর্টিকেল, ভিডিও, তথ্য ইত্যাদি। কিন্তু একবারও কি আপনার জানার ইচ্ছা করে না কোন যাদু বলে এসব অসাধ্য সাধন হচ্ছে? এসবের উত্তর জানতে হলে আপনাকে অবশ্যই ব্রাউজার এবং এর কার্যপদ্ধতি সম্পর্কে গভীর জ্ঞান থাকতে হবে। তাহলে আর দেরি কেন? চলুন তাহলে, ব্রাউজার কি? এবং কোনো ব্রাউজার কিভাবে কাজ করে? তা জেনে নেয়া যাক।

ব্রাউজার তৈরির ইতিহাস

সর্বপ্রথম ব্রাউজার আবিষ্কৃত হয় ‘৯০ এর দশকে। ইংরেজ কম্পিউটার বিজ্ঞানী টিম বার্নার্স লি ১৯৯০ সালে ওয়াল্ড ওয়াইড ওয়েব (world-wide-web) নামে একটি ব্রাউজার তৈরি করেন। এটাই হলো সর্বপ্রথম আবিষ্কৃত কোন ওয়েব ব্রাউজার। তবে ইন্টারনেটের সাথে এর নামের মিল থাকায় পরবর্তীতে এর নামকরণ নেক্সাস (Nexus) রাখা হয়। সে হিসাবে বলা যেতে পারে নেক্সাসও হল সর্বপ্রথম আবিষ্কৃত ওয়েব ব্রাউজার। তবে শুধুমাত্র একটি মাত্রই অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত হওয়ার কারণে ব্রাউজারটির অনেক সীমাবদ্ধতা ছিল।

এসব নানা সীমাবদ্ধতা থাকার কারণে টিম বার্নার্স লি এর ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব ব্রাউজারটি খুব বেশীদিন টিকেনি। এমনকি ব্রাউজারটি সাধারণ ইউজারদের ব্যবহার করার জন্য উন্মুক্ত ছিল না। তবে সে জায়গাটি দূর করে ১৯৯৪ সালে প্রথম বাণিজ্যিক ও জনপ্রিয় ব্রাউজার হিসেবে বাজার দখল করে নেটস্কেপ ব্রাউজার (Netscape Browser)। যা পরবর্তীতে মজিলা নামকরণ করা হয়। এমনকি বর্তমান সময়েও মজিলা একটি জনপ্রিয় ব্রাউজার। 

ব্রাউজার কি?

ইন্টারনেটে সার্চ করেছেন অথচ ব্রাউজার নামটি কখনো শোনেননি এমন কি কখনো হয়? আসলে যারা ইন্টারনেটে কখনো সার্চ করেছেন তারা কোন না কোনো ব্রাউজারের মাধ্যমেই এ কাজটি সম্পন্ন করেছেন। ব্রাউজার হলো কম্পিউটার বা মোবাইলে ব্যবহৃত অন্যান্য সাধারণ সফটওয়্যার মতোই একটি অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার। তবে এটিকে একটি বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে তৈরি করা হয়েছে। আর তা হলো ইন্টারনেট ব্রাউজিং। ব্রাউজিং কথাটির মাধ্যমে মূলত বিভিন্ন ওয়েবপেইজের ভিতরকার লেখা, ছবি, ভিডিও এর চলাচলকে বোঝানো হয়ে থাকে। 

গুগলের ১০ টি দারুণ ট্রিকস

ইন্টারনেটের সুবিধাকে কাজে লাগিয়ে এসব ব্রাউজার ব্যবহার করে আমরা অতি সহজেই কোন বিষয় সম্পর্কে সার্চ করে জেনে নিতে পারি। আর এ কাজে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ব্রাউজারে থাকা বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন। আমাদের সবার পরিচিত একটি অতি জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন হলো গুগল। এছাড়াও রয়েছে বিং, ইয়াহু, বাইদু, ডাক ডাক গো, আস্ক ইত্যাদির জনপ্রিয় সব সার্চ ইঞ্জিন। মূলত এসব সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে কোন কিছু সার্চ করার জন্য ব্রাউজার প্রধান সহায়ক ভূমিকা পালন করে। অর্থাৎ একটি প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করে। তাই বলা যায় ইন্টারনেট জগতে কোন তথ্য অনুসন্ধান করার ক্ষেত্রে যে অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যারটি ব্যবহার করা হয় তাই ব্রাউজার।

ব্রাউজারের সাধারণ বৈশিষ্ট্য

কোন একটি ওয়েব ব্রাউজারের সাধারণ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য রয়েছে। যার মাধ্যমে একজন ব্যবহারকারী খুব সহজেই তার প্রয়োজনীয় তথ্য খুঁজে পেতে পারে। নিচে ব্রাউজারের এমন কিছু সাধারণ বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করা হলো-

  • সার্চ ইঞ্জিনঃ ব্রাউজার এর প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো এর সাথে যুক্ত থাকা বিভিন্ন ধরনের সার্চ ইঞ্জিন। মূলত সার্চ ইঞ্জিনই হচ্ছে কোন ব্রাউজারের প্রাণ। ব্রাউজারের যুক্ত থাকা বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে ব্যবহারকারী খুব সহজেই তার প্রয়োজনীয় তথ্য খুঁজে পায়।
  • কম্পিউটারের নিরাপত্তাঃ  শুধুমাত্র তথ্য খোঁজার নয় এর পাশাপাশি আপনার কম্পিউটারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ব্রাউজারের অন্যতম কাজ। সাধারণত হ্যাকাররা কোন একটি ব্রাউজারের মাধ্যমে আপনার কম্পিউটার নেটওয়ার্কে প্রবেশ করে থাকে। তাই সমস্ত ব্রাউজারেই প্রোটেকশনের ব্যবস্থা করা থাকে। যার ফলে যে কেউ চাইলেই আপনার কম্পিউটার নেটওয়ার্কে প্রবেশ করতে পারবে না।
  • মাল্টিপল ট্যাবঃ  ব্রাউজার একটি উল্লেখযোগ্য সুবিধা হচ্ছে মাল্টিপল ট্যাব ফাংশন। এর মাধ্যমে আপনি সহজেই একের অধিক ওয়েবপেজ খুলে রাখতে পারবেন। যা মাল্টিটাস্কিং করার ক্ষেত্রে মারাত্মক সুবিধা দেয় এবং ব্যবহারকারীর মূল্যবান সময় বাঁচায়।
  • বুকমার্কঃ আপনি কি পছন্দের কোনো ওয়েবপেজ পরবর্তীতে ব্যবহারের জন্য সেভ করে রাখতে চাচ্ছেন? আপনাকে এই সুবিধাটি দেবে ব্রাউজারে থাকা বুকমার্ক অপশন। যা ব্যবহার করে আপনার পছন্দের ওয়েব পেজ গুলো সেভ করে রাখতে পারবেন।
  • ফোল্ডারঃ ব্রাউজার প্রোডাকশন ফোল্ডার সুবিধা থাকায় আপনি ইচ্ছে করলে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের লিঙ্ক লিস্ট আকারে সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন।
  • হোম বাটনঃ ব্রাউজ করতে করতে একাধিক ওয়েবসাইট এর ভিতরে চলে গেলেও হোম বাটনে একবার ক্লিক করলেই ব্রাউজারের হোমপেজে চলে আসবেন।
  • এক্সটেনশনঃ বিভিন্ন ব্রাউজারে প্রকারভেদ অনুযায়ী তাদের নিজস্ব এক্সটেনশন ব্যবহার করতে পারবেন। এক্সটেনশন গুলোকে সাধারণত নির্দিষ্ট কাজের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়। যা আপনার কাজকে আরও সহজ করে তোলে। জনপ্রিয় কিছু এক্সটেনশন হলো- এড ব্লকার, স্ক্রিন রের্কডার, ডাউনলোড ইত্যাদি।

ব্রাউজার কিভাবে কাজ করে?

আচ্ছা, আপনি কি কখনো ভেবেছেন, এত লক্ষ লক্ষ ওয়েবসাইট ও ওয়েব পেজ এর মধ্য থেকে আপনার কাংখিত ওয়েবসাইট কিংবা ওয়েব পেজে কিভাবে ব্রাউজার আপনাকে নিয়ে যায়? আসুন কিভাবে ব্রাউজারে এ অসাধ্যকে সাধন করে তা জেনে নেওয়া যাক-

সাধারণত কোনো ওয়েব ব্রাউজার এর এড্রেস বার এ কোন ওয়েব সাইট এর নাম টাইপ করে এন্টার বাটান প্রেস করলে তখন ওয়েব ব্রাউজার টি আপনার কম্পিউটার এর সাথে সংযুক্ত আইএসপি কে ওয়েব সাইট টি প্রদর্শনের জন্য অনুরোধ পাঠায় । এখন এই সাইট টা যদি আইএসপি এর উপস্থিত সার্ভারে না থাকে , তাহলে এটা পৃথিবীর যে কোন জায়গা হতে খুজে নিয়ে ওয়েব ব্রাউজারে প্রদর্শন করবে। সাধারণত প্রতিটি ব্রাউজারেই ডিফল্ট কিছু সার্চ ইঞ্জিন এড করা থাকে, আর সেটার মাধ্যমেই আপনাকে বিভিন্ন ব্লগ বা সাইটে নিয়ে যায়। তবে আপনি ইচ্ছে করলেই ডিফল্ট সার্চ ইঞ্জিন বাদে অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিনও ব্যবহার করতে পারেন। সাধারণত বেশিরভাগ ব্রাউজার গুগল সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে থাকে।

ব্রাউজার এমন একটি জটিল সফটওয়ার যার মাধ্যমে যেমন অনেক ওয়েবগেইমস খেলা যায়, তেমনি ইন্টারনেট এর বিশাল জগতের সাথে আমাদের মিলন করে দেয়। কিন্তু এতকিছু কীভাবে সম্ভব? ইন্টারনেট কানেকশন নিয়ন্ত্রণ করার জন্য প্রায় প্রতিটি ব্রাউজার HTTP প্রোটকল ব্যবহার করে থাকে। যেখানে সিম্পল কিছু CRUDE( Create Read Update Delete) অপারেশন করা হয় বিভিন্ন ডকুমেন্ট ডিসপ্লে এবং রিড করার জন্য। আবার ক্যাশ মেমোরির মাধ্যমে ব্রাউজার বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংরক্ষণ করে রাখতে পারে । তবে ব্রাউজারের জন্য এত কিছু করা অনেকটা চ্যালেঞ্জিংও বটে।

এন্ড্রয়েড এর ১০ টি ট্রিকস এন্ড টিপস

আবার সবকিছুর সিকিউরিটি মেইনটেইন করার জন্য ডাটা ইঙ্ক্রিপশন এর মত জটিল কাজও ব্রাউজারকে করতে হয়। ইন্টারনাল সকল কাজ নিয়ে জানতে হলে আপনাকে এ বিষয়ে আরো গভীরভাবে স্টাডি করতে হবে। আপাতত জেনে রাখুন, HTML, CSS, JavaScript এই তিনটি ল্যাঙ্গগুয়েজ ব্যবহার করেই মূলত ব্রাউজার তার সকল কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। আশা করি, ব্রাউজার কীভাবে কাজ করে এর উপর একটু হলেও আধো আধো ধারণা তৈরি হয়েছে। 

ব্রাউজার ব্যবহারে সর্তকতা

  • একসাথে অনেকগুলো ট্যাব ওপেন করে না রাখা। কারণ অপ্রয়োজনীয় ওপেন করে রাখা ট্যাবগুলো আপনার কম্পিউটারকে স্লো করে দেয়।
  • অযথা কোন এডে ক্লিক না করা।
  • বিরক্তিকর বিজ্ঞাপণ থেকে বাঁচতে মানসম্মত এড ব্লকার (ad-blocker) ব্যবহার করা।
  •  অপ্রয়োজনীয় কোন এক্সটেনশন ইনস্টল না করা।
  •  ব্রাউজারের সিকিউরিটি অপশন গুলো নিয়মিত চেক করা।
  • ব্রাউজার নিয়মিত হালনাগাদকরণ (আপডেট) করা।

জনপ্রিয় কিছু ওয়েব ব্রাউজার

বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও বহুল ব্যবহৃত কয়েকটি ওয়েব ব্রাউজার হলো-

  • গুগল ক্রোম (Google Chrome)
  • মাইক্রোসফট ইডিজিই (Microsoft Edge)
  • মজিলা ফায়ারফক্স (Mozilla Firefox)
  • সাফারি (Safari)
  • অপেরা (Opera)

আজকের দিনে ইন্টারনেট ব্রাউজিং এর ক্ষেত্রে সর্বপ্রথম আমাদের যে জিনিসটি এখন লাগে তা হল কোন ব্রাউজার। তাই ব্রাউজারেও ভূমিকাকে ইন্টারনেট বা সার্চ ইঞ্জিনের থেকে ছোট করে দেখার কোনো উপায় নেই । এই আর্টিকেলটির মাধ্যমে কোনো ব্রাউজারের ও এর কার্যপ্রণালী সম্পর্কে একটি পরিষ্কার ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করছি ব্রাউজার সম্পর্কে আপনাদের জ্ঞান কিছুটা হলেও বৃদ্ধি পাবে।

Leave a Reply