সফল লিড জেনারেশনের কার্যকর ১০টি উপায়

সফল লিড জেনারেশনের কার্যকর ১০টি উপায়

মেটা ডেসক্রিপশন- এই দশটি পদ্ধতি আপনার লিড জেনারেশন ক্যাম্পেইনকে করে তুলবে আরও বেশি কার্যকর এবং পৌঁছে দিবে সম্ভাব্য লিডের নিকট। 

ব্যবসায় উন্নয়নের জন্য লিড জেনারেশন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। কারো লিড জেনারেশনে বেশি লিড জমা হওয়া বলতে বোঝায় তাদের বিজনেসের প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। একজন সফল মার্কেটার সমস্ত লিড গুলোকে নার্চারিং এর মাধ্যমে সেলস ফানেলে নিয়ে গিয়ে আরো অধিক পরিমাণে সেল করার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এর ফলে যদি কাস্টমারদের সাথে ভালো বন্ডিং তৈরি হয়, তাহলে তাদের সাথে দীর্ঘদিন যাবৎ লেনদেন করা যায়। 

তাই আজকে আমরা আলোচনার বিষয় নির্ধারণ করেছি, লিড জেনারেশনের ১০টি কার্যকর উপায় নিয়ে। যা আপনার লিড জেনারেশনকে করে তুলবে আরো বেশি কার্যকর। 

প্রতিটি লিড জেনারেশন স্ট্র্যাটেজির মধ্যে রয়েছে এই চারটি উপাদান যেমন-

লিড ক্যাপচারঃ লিড থেকে ইনফর্মেশন সংগ্রহ করা। অর্থাৎ যখন কেউ আপনার লিড মার্কেটিং এ অংশগ্রহন করে আপনাকে লিড দিয়ে যায়, তাকে লিড ক্যাপচার বলা হয়। 

লিড ম্যাগনেটঃ লিড সংগ্রহ করার জন্য ইউজারের কাজের ধরণ অনুযায়ী প্রিমিয়াম জিনিস ফ্রিতে অফার করার মাধ্যমে যে লিড সংগ্রহ করা হয়, তাই লিড ম্যাগনেট। 

লিড কোয়ালিফিকেশনঃ যে সকল বিষয়ের উপর নির্ভর করে লিডকে বিবেচনা করা হয়, লিডটি টার্গেট অরিয়েন্টেড কিনা, তাই লিড কোয়ালিফিকেশন।

লিড সেগমেন্টেশনঃ যখন অনেক গুলো লিড সংগ্রহ করা হয়, তখন অনেক রকম শ্রেনী বিভাগের মানুষের দেখা মেলে। তখন মার্কেটার তাদের প্রয়োজন অনুসারে লিড গুলোকে ইন্টারেস্ট এবং অন্যান্য শ্রেনী বিভাগের উপর ভিত্তি করে, আলাদা করার প্রকৃয়াকে বলা হয় লিড সেগমেন্টেশন। 

এখানে আলোচনা করা হয়েছে অত্যন্ত কার্যকর ১০টি লিড জেনারেশন পদ্ধতি যা আপনি আপনার ব্যবসায়ীক কাজে ব্যবহার করতে পারবেন খুব সহজে। 

১. গেইটেড কন্টেন্ট তৈরি করা

লিড জেনারেশন করতে গেলে গেইটেড কন্টেন্ট তৈরি করতে হবে অবশ্যই। এতে করে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে লিড সংগ্রহ করা যায়, তা অনেক জায়গায় পরিক্ষিত। গেইটেড কন্টেন্ট হচ্ছে- এমন ভাবে প্রয়োজনীয় কন্টেন্টকে ডিজাইন করা ব্লগ পোস্ট বা ল্যান্ডিং পেইজের মাধ্যমে, যেন ইউজারকে ঐ কাঙ্খিত কন্টেন্টের নিকট পৌছাতে হলে লিড দিয়ে যেতে হয়। অর্থাৎ শুধু মাত্র কয়েকটা প্রশ্নের বা কিছু ব্যক্তিগত ইনফর্মেশন শেয়ারের মাধ্যমে ইউজার খুব সহজে কাঙ্খিত কন্টেন্ট পেয়ে যায়। গেইটেড কন্টেন্ট বেশ কয়েকটি উপায়ে করা যেতে পারে, যেমন-

  • হোয়াইট পেপার
  • ই-বুক
  • গাইড
  • রিপোর্ট
  • কোর্স
  • ওয়ার্কশীট
  • অনলাইন টুলস

গুগল অ্যাডস কিভাবে কাজ করে?

২. ইউজারদের প্রয়োজনীয় কিছু নিউজলেটার

সফল ভাবে লিড জেনারেট করার আরেকটি কার্যকর পদ্ধতি হচ্ছে এটি। ইউজারদের জন্য ভ্যালু-প্যাকড কন্টেন্ট তৈরি করার যাতে করে তারা সেটি দেখে অবশ্যই ক্লিক করতে বাধ্য হয়। এতে করে কোম্পানীরও প্রচার হয়, সাথে ব্রান্ড ভ্যালুও বাড়ে। এটি করা যেতে পারে – 

  • নতুন ব্লগ পোস্ট তৈরির মাধ্যমে 
  • প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের আপডেটের মাধ্যমে
  • স্পেশাল অফারের মাধ্যমে 
  • আপকামিং ইভেন্টের মাধ্যমে

৩. ইভেন্ট হোস্ট এর মাধ্যমে 

একটু ভাল করে যদি চিন্তা করে দেখেন, আপনি যে আপনার কাঙ্খিত প্রিয় ব্যক্তিটিকে দেখার জন্য একটি গুগল ডকস পূরণ করছেন, যেটিকে তারা বলছে রেজিস্ট্রেশন ফর্ম, সেটি কিন্তু এক প্রকার লিড জেনারেট করার পদ্ধতিও বটে। এই পদ্ধতি ব্যবহার করে গ্রাহকের অজান্তেই তাদের প্রয়োজনীয় অনেক ডাটা কালেক্ট করে ফেলা যায়। একজন সফল মার্কেটার এর উচিত, অডিয়েন্সের ধরণ দেখে তাদের প্রিয় ব্যক্তিকে লাইভে বা ইভেন্টে আনার ঘোষণা দিয়ে ইউজারদের থেকে লিড সংগ্রহ করা। এটি করা যেতে পারে-

  • ওয়েবনার
  • ওয়ার্কশপ
  • সেমিনার
  • মিটআপ
  • কনফারেন্স

ইত্যাদির মাধ্যমে। এটি খুবই কার্যকর এবং অথেন্টিক লিড জেনারেশন পদ্ধতি। 

৪. কুপন অথবা ডিসকাউন্ট অফার করা

অফারের মাধ্যমে অনেক উচ্চমানের লিড সংগ্রহ করা যায়। এতে করে বিজনেসের যেমন গ্রো হয় তেমনি গ্রাহকও উপকৃত হয়। আর গ্রাহক যখন উপকৃত হওয়ার কোন রকম সম্ভাবনা আগে থেকে দেখবে, তখন সে যেকোন মূল্যে তা লুফে নিতে চাইবে। তাই কুপন অথবা ডিস্কাউন্ট অফার করার মাধ্যমেও ভালো মানের লিড জেনারেশন করা যায়। এই কুপন ব্যবহারের মাধ্যমে একই সাথে দু’ধরনের উপকার হয়ে থাকে, যেমন ধরুন একে আপনাদের পন্য গুলোও বিক্রি হবে তার উপর আবার ভালো মানের লিডও জেনারেট করে নিতে পারবেন। 

৫. প্রিমিয়াম প্রোডাক্ট এর অফার বা ফ্রি ট্রায়াল দেয়ার সুযোগ 

আমরা লিড জেনারেশন করতে গিয়ে একটা কথা নিশ্চই বুঝতে পেরেছি যে, মানুষ আসলে তাদের নিজেদের প্রয়োজনটাকে সবার আগে প্রাধান্য দিয়ে থাকে। এবং মানুষ যখন বুঝতে পারে কোন পন্যটি তাদের খুব বেশি প্রয়োজন আর কোনটা কম প্রয়োজন তখন তারা বুঝে যায় কোন দিকে আসলে তাদের গন্তব্য হওয়া উচিত। আর মানুষের এই সাইকোলজিকে কাজে লাগিয়ে যে সকল ডিজিটাল মার্কেটার সফল ভাবে ক্যাম্পেইন করে যাবে এবং লিড কালেক্ট করতে যাবে তারাই সফল হবে।

এক্ষেত্রে বলছিলাম প্রিমিয়াম কিছু পন্যের গিভওয়ের ব্যপারে, বা প্রিমিয়াম পন্যের ফ্রি ট্রায়ালের মাধ্যমে গ্রাহকের সন্তুষ্টি অর্জনের মাধ্যমে লিড সংগ্রহ করে নেওয়া্র কথা। একজন মানুষ যখন দেখবে যে পন্য সে টাকার বিনিময়ে ব্যবহার করতে পারতো, সে সেটি এখন অল্প কিছু সংখ্যক ডাটা শেয়ারের মাধ্যমে পেয়ে যাচ্ছে, তখন সে নিশ্চই ডাটা দিয়ে পন্যটি লুফে নিবে। তাই প্রিমিয়াম প্রোডাক্ট শেয়ারের মাধ্যমে খুব সহজে ভালো মানের লিড সংগ্রহ করা সম্ভব। 

৬. ওয়েবসাইটে লাইভ চ্যাট ব্যবহারের মাধ্যমে

ওয়েবসাইটে লাইভ চ্যাট করার শুরুতে যদি নাম আর ইমেইল এড্রেস দিয়ে কনভার্সেশন শুরু করতে বলেন, তাহলে ভালো মানের লিড আপনার সংগ্রহে জমা হয়ে যাবে। এতে করে গ্রাহক যেমন আপনার থেকে সেবা পাবে, তেমনি আপনিও তাদের লিড হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। 

ওয়েব ব্রাউজার কি? সেরা ১০ টি ওয়েব ব্রাউজার

7. লিড ম্যাগনেটের মাধ্যমে ওয়েবসাইটকে অপটিমাইজ করা 

বেশি পরিমাণে লিড সংগ্রহ করতে চাইলে অবশ্যই ইউজারকে লিড মেগনেটের কাছে নিয়ে যেতে হবে, ওয়েবসাইটের অপটিমাইজেশনের মাধ্যমে। অর্থাৎ ইউজার যেন খুব সহজে আপনার লিড ম্যাগনেটকে খুজে পেতে পারে। এক্ষেত্রে আরও যা যা করা যেতে পারে-

  • কল-টু-একশনের মাধ্যমে হোমপেইজকে হাইলাইট করা
  • ব্লগ পোস্টের ধরণ অনুযায়ী লিড ম্যাগনেট ব্যবহার করা
  • স্লাইড বারের মাধ্যমে লিড জেনারেশনের হাই-লাইট করা 

৮. সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলো অপটিমাইজ করা 

আপনার বিজনেসের যে সকল সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম আছে, সব জায়গায় লিড ম্যাগনেটের কথা প্রচার করার মাধ্যমে খুব সহজে ইউজারদের নিকট পৌঁছে যাওয়া যায়। প্রোফাইল পিকচার, ব্যকগ্রাউন্ড ইমেইজ, ডে এর মাধ্যমে সোশাল মিডিয়া ফ্লাটফর্মের ইউজারদের খুব সহজে লিড ম্যাগনেটের প্রচার করা সম্ভব

৯. আপনার বিজনেসের সাথে সম্পৃক্ত ইউজারদের পুনরায় টার্গেট করা

আপনার বিজনেসের সাথে পূর্বে কোন রকম ট্রাঞ্জেকশন ছিলো, বা সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে ইন্টারেস্ট শো করেছে, এমন ইউজারকে আবার টার্গেট করে লিড ম্যাগনেট অফার করা। অর্থাৎ যাদের ইমেইল বা ফোন নাম্বার আছে, তাদের ঐসকল ইমেইল অথবা ফোন নাম্বার এর মাধ্যমে লিড ম্যাগনেট গুলো পৌঁছে দেওয়া। 

১০. রেফারেল রিওয়ার্ড সিস্টেম

ভালো মানের কন্টেন্ট শেয়ারের মাধ্যমে ওয়েবপেইজকে যদি ইউজারদের মাধ্যমে বুস্ট করানো যায়, তাহলে ক্ষতি কি? তাই ওয়েবপেইজের মধ্যে যদি ইউজারদের বাড়তি কিছু সুবিধা দেওয়ার কথা জানিয়ে, বন্ধুদের নিকট ওয়েবসাইট শেয়ার করার মাধ্যমেও অনেক বেশি পরিমাণ মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়। 

এই দশটি উপায় ব্যবহার করে খুব সহজে আরও বেশি পরিমাণ মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়, এবং লিড সংগ্রহ করা যায়। আপনি যদি লিড জেনারেশন নিয়ে অনেক বেশি সিরিয়াস হয়ে থাকেন, অথবা ইফেক্টিভ লিড জেনারেশন মার্কেটিং করতে চান, তাহলে আপনাকে অবশ্যই এই ট্রিকস গুলো ফলো করতে হবে। এই দশটি স্ট্র্যাটেজির কল্যানে আপনি খুব ভালো মানের লিড সংগ্রহ করতে পারবে। 

Leave a Reply